অপটিমাইজেশন বলতে কি বুঝায়
অপটিমাইজেশন বলতে কি বুঝায়

অপটিমাইজেশন বলতে কি বুঝায়? Web Tutorial Updates

অপটিমাইজেশন : কোন একটি ফাইল কে অর্থাৎ কোন বড় এমবির একটি ফাইল কে ছোট করে কেবি তে রূপান্তরিত করা কিংবা তার কোয়ালিটি ঠিক রেখে এমবি কমিয়ে রাখা কে বলা হয় অপটিমাইজেশন। অপটিমাইজেশন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ এবং এটি মোবাইল ওয়েবসাইট সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অপটিমাইজেশন এর কাজ করা হয়।  আজকে আমরা অপটিমাইজেশন এর উপর সম্পূর্ণ টি-টোয়েন্টি দেওয়ার চেষ্টা করব।

আমরা কোথায় অপটিমাইজেশনের কাজটি করতে পারে ?

 

আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের অপটিমাইজেশনের কাজটি সম্পূর্ণ করতে পারিনি।  প্রথম আমরা Optimization এর কাজটি করতে পারি। আমাদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে। অনেকের মনে প্রশ্ন আসতে পারে মোবাইলের মধ্যে আমরা কিভাবে অপটিমাইজেশনের করতে পারি।

মোবাইলে অপটিমাইজেশনের কাজ বলতে। আমরা অনেক সময় মোবাইলটি ব্যবহার করতে করতে একসময় মোবাইলের সেট মেমোরি ফুল হয়ে যায়। যার কারণে মোবাইলটি হ্যাং করে।  সেইসাথে মোবাইলে কোন ধরনের কাজ করতে আমাদের অসুবিধা হয়। সেই ক্ষেত্রে আমরা যদি মোবাইলে মেমোরি কার্ড ফরমেট না করে। সবগুলো অ্যাপের ডাটাবেজ ক্লিয়ার করে দিই। তাহলে দেখা যাবে যে মোবাইলটি অনেক ফাস্ট হয়ে গেছে। এইভাবে আমরা মোবাইলটি Optimization এর কাজটি কমপ্লিট করতে পারি।

অপটিমাইজেশন গুরুত্বপূর্ণ কেন?

 

অপটিমাইজেশন না করলে আমাদের মোবাইল ফোনটি চালু হয়ে যাবে। এটাতেই আমরা যদি কম্পিউটার ইউজ করি। তাহলে কম্পিউটার মেমোরি অণুসমূহ ফুল হয়ে যায়। তবে সে ক্ষেত্রে আমরা যদি কম্পিউটারের মেমোরি কিংবা ডিকশনারি। তাহলে দেখা যাবে যে কম্পিউটারে কোন ধরনের থাকবে ন। সেই সাথে প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রয়োজনে অনেকগুলো ফাইলস পড়ে থাকবে।

আমরা অনেক সময় ডিলিট করার পরেও ফাইলগুলোকে রিসেন্ট থেকে ডিলিট করে না। সে ক্ষেত্রে দেখা যাবে যে ফাইল ডিলিট করার পরেও এটি রিসেন্ট এ থেকে যাবে। যার কারণে মোবাইল কম্পিউটার স্পেস যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে। কম্পিউটারের কোনো কাজ করতে পারবোনা। তাই অপটিমাইজেশন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।  এটি আমাদের দৈনন্দিন কাজে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এটি না করতে পারলে আমাদের জীবন আছে মোবাইল কম্পিউটার মত হয়ে যাবে।

"<yoastmark

ওয়েবসাইটে অপটিমাইজেশন করা যায়?

 

অবশ্যই ওয়েবসাইটের অপটিমাইজেশন করা যায়। ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন ধরনের কনটেস্ট লিখে থাকি। ইমেজ ইউজ করে থাকি। সেই সাথে আমরা অনেকগুলো ভিডিও ক্লিপ ইউজ করে থাক। আরো অনেক কিছু তাছাড়া ওয়েবসাইটি তৈরি বিভিন্ন ধরনের কোডিং এর সমন্বয়ে জাগানো দেখা যায়। যে ওয়েবসাইটে লোড নিতে অনেক সময় টাইম নেই। আমরা দেখব যে আমরা যখনই ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে চাই। তখনই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রায় অনেক সময় নেই। যার কারণে ভিজিটরের আগে অফিস থেকে বের হয়ে যায়। এবং অন্য কোন ব্রাউজারে তারা প্রকাশ করে। সেক্ষেত্রেও খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ওয়েবসাইট অপটিমাইজেশন করা জন্য অনেকগুলো পন্থা অবলম্বন করতে হয়।

অপটিমাইজেশন কি কি ধরনের হয় ?

 

অপটিমাইজেশন কয়েক ধরনের হয়। যেমন আছে ইমেজ অফ ট্রাদিশন। কন্টেন অপটিমাইজেশন। লোডিং টাইম অপটিমাইজেশন। কোডিং অপটিমাইজেশন। মেমোরি Optimization ইত্যাদি আরও বিভিন্ন ধরনের Optimization হয়ে থাকে।

ইমেজ অপটিমাইজেশন বলতে আমরা যদি কোন একটি ইমেজ কে ফটোশপ দিয়ে তৈরি করি। তখন সে ইমেজের সাইজটা অনেক বড় হয়। আমরা সেই মিষ্টি যখন কোন সার্ভারে আপলোড করি। তখন সেই সার্ভারে অনেকটা ফাইল জুড়ে অবস্থান করে। যার কারণে এটি লোড নিতে অনেক সময় নেয়।  ইমেজ অফ। ক্ষেত্রে আমাদেরকে প্রথমে ইমেজটিকে Optimization করে নিতে হবে। অর্থাৎ তার এমবিপিএস কেস নিয়ে আসতে হবে।  এরপর আরেকটি কাজ করতে পারে। আমরা ইমেজটিকে webp  ফরমেট নিয়ে আসতে পারে। তাহলে দেখা যাবে যে ইমেজের অপটিমাইজেশন সম্পূর্ণভাবে করা যাবে।

 

অপটিমাইজেশন বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে আমরা সেগুলো পরবর্তী পোষ্টের মাধ্যমে আলাপ আলোচনা করার চেষ্টা করব আজকের পোষ্টে আমরা আর পারছি না।  পরবর্তী পোষ্টের মাধ্যমে আমি আপনাদেরকে Optimization সম্পর্কে ডিটেইলস জানার চেষ্টা কর। এবং কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটে লোডিং কমাতে করতে পারবেন সিটি সহ বিভিন্ন ধরনের টিপস অন্ড ট্রিক আমাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশ হয়ে থাকবে। অবশ্যই যারা যারা আমাদের ওয়েবসাইটটি প্রতিনিধি ভিজিট করার নেই।  অবশ্য প্রতিনিধি ভিজিট করবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

www.taja1.com