এনক্রিপশন কি
এনক্রিপশন কি

এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন কি এবং এর দরকার কি?

এন্ড এনক্রিপশন সম্প্রতি ফেইসবুক ঘোষণা দিয়েছে, তারা মেসেঞ্জারে এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন চালু করবে।যা পূর্বে ছিল না।এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন আসলে কি? এর দরকার কিবা সুবিধা -অসুবিধা কি?আসুন জানার চেষ্টা করি।

এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন

এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন আসলে ইউজারদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কেউ একজন যদি অন্য কাউকে ম্যাসেজ পাঠায় সেটা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ট্রাভেল করে অপর জনের কাছে পৌঁছায়।মাঝে সার্ভার থাকে এবং এটার মাধ্যমে ট্রাভেল করেই অপর জনের কাছে ম্যাসেজ পৌঁছায়।

সবাই এটা জানেন যে আমরা সবাই ইন্টারনেটে কানেক্টেড। সবাই এই ইন্টারনেটে কানেক্টেড থাকে অর্থাৎ সবার ডিভাইস কানেক্টেড থাকে।একজন অপর জনকে ম্যাসেজ দিলে সেটা ম্যান ইন দ্য মিডল নামের অ্যাটাকের শিকার হতে পারে।সার্ভার হ্যাক হলে আপনার ম্যাসেজ টা রিভিল হয়ে যেতে পারে।মাঝেই ইন্টারেপ্টেড হতে পারে।তাই এই সমস্যার সমাধানের জন্য এন্ড টু এন্ড ব্যবহার করা হয়।

সহজ ভাষায় এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন

সহজ ভাষায়, একজন ব্যক্তি অপর কোন ব্যক্তিকে ম্যাসেজ দিলে সেটা একটা ইনক্রিপ্টেড মাধ্যমে বা একটা সিকিউরিটি কী এর মাধ্যমে যাবে যা মাঝপথে আনলক বা হ্যাক হবার কোন সম্ভাবনা নাই । এই ম্যাসেজ লক করা হলো এইটা আনলক করার পাসওয়ার্ড শুধু  যিনি ম্যাসেজ রিসিভ করবেন তার কাছেই থাকবে।অন্য কেউ চাইলেই এটা আনলক করতে পারবে না।

এটাই এন্ড টু এন্ড এর মুল কথা।সার্ভার হ্যাক হলেও ম্যাসেজ কেউ দেখতে পারবে না।

টেকনিক্যাল টার্মে এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন

টেকনিক্যাল টার্মে যদি বলা হয়,অনেকেই হয়ত সিমেট্রিক ও এসি ম্যাট্রিক এনক্রিপশন এর নাম শুনেছেন।এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন মূলত এসি ম্যাট্রিক এনক্রিপশন ব্যবহার করে।

এখানে দুইটা কী থাকে।পাবলিক কী ও প্রাইভেট কী।

এনক্রিপশন কি
এনক্রিপশন কি

পাবলিক কী

পাবলিক কী ব্যবহার করা হয় ম্যাসেজ এনক্রিপ্ট করার জন্য।আর পাবলিক কী মুলত দুই পক্ষের কাছেই থাকে, সার্ভারের কাছেই থাকে।পাবলিক কী দ্বারা ম্যাসেজ এনক্রিপ্ট করলে সেটা অটোমেটিক একটা কী জেনারেট করবে যেই কী শুধু মাত্র রিসিভার এর কাছেই থাকবে।

প্রাইভেট কী

প্রাইভেট কী ব্যবহার করা হয় ম্যাসেজ ডিক্রিপ্ট করার জন্য।সেন্ডার এর কাছেও সেই প্রাইভেট কী থাকবে না।সেন্ডার এর কাছে ও রিসিভার এর কাছে দুইটা আলাদা কী থাকবে।কিন্তু পাবলিক কী দুই জনেই দেখতে পারবে। এখানে ডেটা লিক হওয়ার তেমন কোন সম্ভবনা নেই। তাই এই এনক্রিপশন সিস্টেম ব্যবহারকারী দের অনেক ইউসফুল।

এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন সুবিধা -অসুবিধা কি??

সুবিধা তো বুঝতেই পেরেছেন।মুলত সিকিউরিটি বৃদ্ধির জন্য এই ফিচার।

কিছু অসুবিধা আছে।যেমন দেশের সিকিউরিটি ফোর্স যদি কোন আসামীকে ট্র‍্যাক করতে চায় যে আসামী ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে যোগাযোগ করে তাহলে সিকিউরিটি ফোর্স ফেইসবুক এর সাথে কন্ট্যাক্ট করলেই তারা ঐ আসামীর ম্যাসেজ বা চ্যাট দিয়ে দিবে।

কিন্তু যদি এন্ড টু এন্ড চালু করা থাকে ফেইসবুক চাইলেই ঐ আসামীর ম্যাসেজ সিকিউরিটি ফোর্সকে দিতে পারবে না।আর দিলেও সেটা সিকিউরিটি ফোর্স ওপেন করতে পারবে না।কারন সেটার আনলক কী ঐ আসামির কাছে থাকবে।এটাই মেইন আসুবিধা।

www.Taja1.com