মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপায়
মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপায়

মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার অসাধারণ উপায় জেনে নিন 2021 

মোবাইল ফ্লাশ : আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা। আশা করি সবাই ভাল আছেন সুস্থ আছেন। আজকে আপনাদের সামনে নিয়ে আসলাম আবার নতুন টপিক নিয়ে উপস্থিত হতে চলেছে। মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার অসাধারণ উপায় এবং মোবাইল প্লাস দিলে কি হতে পারে ? এমন কি কি সুবিধা এবং অসুবিধা হতে পারে।  তার সম্বন্ধে বিস্তারিত পোস্ট দেওয়ার চেষ্টা করব।

মোবাইল ফ্লাশ বলতে কি বুঝায়?

পুরোপুরি মোবাইল ফ্লাশ  অর্থাৎ মোবাইলটিকে পুরো রিসেট দিয়ে নতুনভাবে তৈরি কোরে নেওয়া।  সহজ ভাষায় বলতে গেলে আমরা বুজি মোবাইল ফ্লাশ বলতে এমন  একটি পন্থা অবলম্বন করে। যেটা হলো আমরা যখন মোবাইলের দোকান থেকে কিনে। সেই মোবাইলটি ইউজ করার পরে দীর্ঘদিন যাবত ব্যবহার করার পর। আমরা যদি আমরা মোবাইল ফ্লাশ দিয়া দি। তখন এটি পুনরায় নতুন অবস্থায় ফিরে আসে। এরকম অবস্থায় আমরা বলে থাকি  মোবাইল ফ্লাশ।

মোবাইল ফ্লাস করতে কি করতে হবে?

আমাদের হাতের মোবাইল সেটটি যদি কোন ধরনের প্রবলেম হয়। তাহলে আমরা সেই মোবাইলটা কি মোবাইল ফ্লাশ দিয়ে থাকি। তার জন্য আমাদেরকে মোবাইলে যে কোম্পানি রয়েছে। সেই কোম্পানিতে যেতে হবে না। অর্থাৎ মোবাইলে অনেকগুলো কোম্পানি থাকে। যেমন স্যামসাং স্যামপনি, আই ফোন ,নোকিয়া সহ আরো অনেক ধরনের বড় বড় প্রাণ। কোম্পানিতে আমাদের যেতে হবে না।

আমরা সাধারণত আমাদের আশেপাশে যে সকল দোকান রয়েছে। সেখানে কম্পিউটার এবং মোবাইল সার্ভিসিং দোকানে গেলেই মোবাইল প্লাস পাওয়া যাবে। আমরা সেই সকল দোকান থেকে মোবাইল লাশটি করে নিতে পারি স্বল্প পরিমাণ খরচ করে। মোবাইল ফ্লাশ করতে খরচ হয় মিনিমাম 200 থেকে 300 টাকা।

মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপায়
মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপায়

মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপকারিতা গুলো কি কি ?

আমরা সাধারণত মোবাইলটি তখনই বাস করি। যখন আমাদের মোবাইলে কোন ধরনের প্রবলেম ফেস করতে হয়। যেমন করে দেখা যাচ্ছে আমরা অনেক সময় অনেক ধরনের অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকি। আমাদের প্রয়োজন অনুসারে কিংবা অপ্রয়োজনে। নানা ধরনের কারণে আমরা দুইজন করে ইন্সটল করা থাকে।

তাছাড়া আমরা শেয়ারের মাধ্যমে কিংবা অন্য যেকোনো গুগল প্রজার কিংবা অন্য যে কোন উপায়ে। আমাদের মোবাইলে অ্যাপ্লিকেশনকে সমূহ লোড করে থাকে।

যার কারণে দেখা যায় যে একসময় আমাদের মোবাইলে জায়গা থাকে না। এবং আমাদের মোবাইলটি হ্যাং করতে শুরু করে।  তখন আমরা মোবাইলের মেমোরি থেকে অনেক কিছু ডিলিট করার পরেও আমাদের মোবাইলের সবকিছু ফিরে পায় না।  সেই মুহূর্তে আমরা মোবাইলটি প্লাস দিয়ে থাকি।  এর ফলে দেখা যায় যে আমাদের মোবাইলটি অনেক দ্রুত এবং প্রাপ্ত হয়েছে। মোবাইলটি আগে যেরকম ছিলাম ঠিক এইরকমই হয়ে যায়। এজন্য আমরা মূলত মোবাইল ফ্লাশ দিয়ে থাকি।

ওয়ানপ্লাস আমি কিভাবে দিতে পারি?

বর্তমানে কমবেশি অনেকেই এন্ড্রয়েড মোবাইল সম্পর্কে জানে এবং যারা জানেনা তারা অবশ্যই আমাদের সবার শহরের মানুষের চিন্তাধারা থেকে হেল্প নিতে পারি কিংবা বিভিন্ন ধরনের মোবাইল সার্ভিসিং দোকান আছে ওই দোকানে গিয়ে আমরা আমাদের মোবাইলটি ফ্লাস দিতে পারে।

মোবাইল ফ্লাশ দেওয়ার উপায় রয়েছে একটি হচ্ছে আপনি মোবাইলের মাধ্যমে দিতে পারেন আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে সেটি হল আপনি কম্পিউটারের মাধ্যমে মাধ্যমে নিতে পারেন ফ্লাশ দিতে পারেন।

কি কি কারণে আমরা মোবাইলটি ফ্লাশ দিয়ে থাকি?

কখনো যদি আমরা আমাদের মোবাইলের প্যাটার্ন ভুলে যাই কিংবা আমাদের মোবাইলে পাসওয়ার্ড ভুলে যায়।  অথবা মোবাইলে কোন ধরনের সমস্যা হলে।  আমরা মোবাইলে কিনার পরে যদি আরও জানা গেছে মোবাইলটি বিক্রি করতে চাই।  মোবাইল যখন আমরা নিজে ব্যবহার না করে আরেকজন দিতে চাই তখনই আপনার মোবাইলটি প্লাস দিয়ে থাকি।

তো বন্ধুরা আজকে পর্যন্ত। আবারও দেখা হবে নতুন কোন পোস্টে নতুন কোন টপিক এর উপর। সেই  পর্যন্ত আপনারা ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ। অবশ্যই প্রতিদিনই আমার ওয়েবসাইটে ভিজিট করে নিবেন। যেন পরবর্তীতে আরো নতুন নতুন টপিকের উপর পোস্ট নিয়ে আসতে পারি আপনার জন্য।আপনাদের যদি কোন সমস্যা হয় কমেন্টস করবেন।

www.taja1.com